ইউরোপবিশ্ব

অবশেষে পার্লামেন্টে ক্ষমা চাইলেন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী

নন্দন নিউজ ডেস্ক: করোনাভাইরাসের মহামারির মধ্যে লকডাউন চলার সময় আইন ভঙ্গ করে পার্টি করায় শেষ পর্যন্ত পার্লামেন্টে ক্ষমা চাইতে বাধ্য হয়েছেন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন।

প্রথমে লকডাউন পার্টির অভিযোগ অস্বীকার করলেও পরে পুলিশের তদন্তে জনসনের অপরাধ প্রমাণ হয়।খবর বিবিসির।

এরপরই তিনি প্রথমে ব্রিটিশ নাগরিকদের কাছে এবং পরে গত মঙ্গলবার পার্লামেন্টে ক্ষমা চান। এছাড়া পুলিশ তাকে ৫০ পাউন্ড জরিমানাও করেছে।

আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমগুলো বলছে, ক্ষমতায় থাকা অবস্থায় এমন শাস্তির মুখে পড়া প্রথম ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন।

পুলিশ যদিও আগেই এই শাস্তি ঘোষণা করেছিল তবে শাস্তি পাওয়ার পর মঙ্গলবার প্রথম পার্লামেন্টের মুখোমুখি হতে হয় জনসনকে। তার সঙ্গে জরিমানা করা হয়েছে বৃটিশ অর্থমন্ত্রী ঋষি সুনাককেও। পার্লামেন্টে তাদের দুই জনের পদত্যাগ দাবি করেছেন বিরোধী নেতারা।

বরিস জনসনের নিজের দলের কিছু নেতাও বলেছিলেন, প্রধানমন্ত্রীর পদত্যাগ করা উচিত। তবে জনসন সেই দাবি আমলে নেননি।

কিন্তু এবার হাউস অফ কমন্সে ১১ দিন ইস্টার সানডে ছুটির পর বিরোধীদের মুখোমুখি হতে হয় জনসনকে। এতে তিনি নিজের ভুলের জন্য সবার কাছে ক্ষমা চান।

মঙ্গলবার জনসন বলেছেন, আমি আবার ক্ষমা চাই। প্রধানমন্ত্রীর কাছে মানুষ আরও বেশি প্রত্যাশা করতেই পারেন। আমি আবার বলছি, এটা আমার ভুল। আমি তার জন্য ক্ষমা চাইছি।

সম্পর্কিত নিউজ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button