ইউরোপএশিয়াবিশ্বযুক্তরাষ্ট্র

ন্যাটোতে যোগদানে ফিনল্যান্ডের আবেদন ১৮ মে

নন্দন নিউজ ডেস্ক: ফিনল্যান্ড আগামী বুধবার পশ্চিমা সামরিক জোট ন্যাটোয় যোগদানের জন্য আবেদন করতে পারে বলে জানিয়েছেন দেশটির পররাষ্ট্রমন্ত্রী পেক্কা হাভিস্তো। তিনি বলেন, ‘ন্যাটোতে স্থায়ী প্রতিনিধি হতে আমরা সম্ভবত বুধবার একটি আবেদন করতে যাচ্ছি। ন্যাটোর সঙ্গে আলোচনা শুরু হলে আমাদের প্রতিনিধিদল তা দেখভাল করবে।’ খবর তাস।
কাল সোমবার ফিনল্যান্ডের সংসদ ন্যাটোতে যোগদানের সম্ভাবনা নিয়ে আলোচনা করবে। ১২ মে ফিনল্যান্ডের রাষ্ট্রপতি সাউলি নিনিসটো এবং প্রধানমন্ত্রী সানা মারিন এক যৌথ বিবৃতিতে বলেন, ফিনল্যান্ডের যত তাড়াতাড়ি সম্ভব ন্যাটোর সদস্য হওয়ার জন্য আবেদন করা উচিত। আবেদনের বিষয়ে আনুষ্ঠানিক সিদ্ধান্ত আজ রোববারের মধ্য হবে বলে আশা করা হচ্ছে।

এদিকে ন্যাটোয় যোগ দিলে ফিনল্যান্ড বড় ‘ভুল করবে’ বলে দেশটিকে সতর্ক করে দিয়েছেন রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন। গতকাল শনিবার ফিনল্যান্ডের প্রেসিডেন্ট সাউলি নিনিস্তোর সঙ্গে ফোনে কথা বলেন পুতিন। এ সময় তিনি এমন মন্তব্য করেন। এ বিষয়ে ক্রেমলিনের পক্ষ থেকে এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে, দীর্ঘদিন ধরে সামরিক বিষয়ে নিরপেক্ষ থাকার নীতি মেনে আসছিল ফিনল্যান্ড। সম্প্রতি এ নীতি পরিত্যাগ করে দেশটি পশ্চিমা সামরিক জোট ন্যাটোয় যোগ দিতে চাইছে। ফিনল্যান্ডের নিরাপত্তার ওপর কোনো হুমকি নেই। এরপরও ন্যাটোয় যোগ দিলে দেশটি বড় ভুল করবে। ফোনালাপে ফিনল্যান্ডের প্রেসিডেন্ট নিনিস্তোকে এমনটাই জানিয়েছেন পুতিন।

ফিনল্যান্ডের সামরিক নীতির পরিবর্তন প্রতিবেশী দেশটির সঙ্গে রাশিয়ার দীর্ঘদিনের দ্বিপক্ষীয় সহযোগিতার সম্পর্কে নেতিবাচক প্রভাব ফেলতে পারে বলেও ক্রেমলিনের বিবৃতিতে সতর্ক করে দেওয়া হয়েছে।

কিছুদিন আগেও ফিনল্যান্ডের সাধারণ মানুষের মধ্যে ন্যাটো জোটে যোগ দেওয়া নিয়ে আগ্রহ ছিল না। চলতি বছরের জানুয়ারিতে দেশটির প্রধানমন্ত্রী সানা মারিন জানিয়েছিলেন, বর্তমান সরকারের আমলে ন্যাটোতে যোগদানের আবেদন করতে চায় না তাঁর দেশ। তবে ইউক্রেনে রুশ হামলা শুরর পর দেশটির অধিকাংশ মানুষ ন্যাটোতে যোগ দেওয়ার পক্ষে মতামত দিয়েছেন। বদলে গেছে সানা মারিনের অবস্থানও। এখন তিনি ন্যাটোতে যোগ দেওয়ার বিষয়টি পার্লামেন্টে তুলতে চান। একই কারণে ন্যাটো জোটের সদস্য হতে চায় সুইডেনও।

ইউক্রেনে যুদ্ধ শুরুর আগে ফিনল্যান্ডের ৫৩ শতাংশ ও সুইডেনের ৪১ শতাংশ মানুষ ন্যাটোতে যোগ দেওয়ার পক্ষে ছিল বলে জরিপে দেখা যায়। তবে সাম্প্রতিক জরিপে দেখা গেছে, সুইডেনে ন্যাটোতে যোগদানের পক্ষে জনমত ৫০ শতাংশের বেশি হয়েছে। আর ফিনল্যান্ডে এই হার এখন ৬৮।

ন্যাটোতে আনুষ্ঠানিকভাবে যোগ না দিলেও অনেক আগে থেকেই জোটটির সঙ্গে কাজ করছে ফিনল্যান্ড ও সুইডেনের সেনাবাহিনী। আফগানিস্তানে ন্যাটোর নেতৃত্বাধীন অভিযানে অংশ নিয়েছিলেন দেশ দুটির সেনাসদস্যরা। দুই দেশই সামরিক সরঞ্জাম ও প্রশিক্ষণের বিষয়ে ২০১৫ সাল থেকে যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে ঘনিষ্ঠভাবে কাজ করছে।

এদিকে ফিনল্যান্ডের ন্যাটোতে যোগ দেওয়ার সম্ভাবনার মুখে দেশটিতে বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ করে দিয়েছে রাশিয়া। এর আগে দেশটির রুশ বিদ্যুৎ সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠান ‘রাও (আরএও) নর্ডিক’ বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধের হুমকি দেয়। এরপরই ফিনল্যান্ডে বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ করা হলো। ফিনল্যান্ডের সঙ্গে রাশিয়ার দীর্ঘ ১ হাজার ৩০০ কিলোমিটার (৮১০ মাইল) সীমান্ত রয়েছে।

সম্পর্কিত নিউজ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button