বিশ্ব

পোল্যান্ড সীমান্তে ক্ষেপণাস্ত্র হামলা নিয়ে তোলপাড় আন্তর্জাতিক মহলে

কমছেই না রুশ-ইউক্রেন যুদ্ধের ভয়াবহতা। এর মাঝে, আগুনে ঘি ঢাললো পোল্যান্ড সীমান্তে মিসাইল বিস্ফোরিত হওয়া। ইউক্রেন সীমান্ত লাগোয়া দেশটি ন্যাটোরও সদস্য। তাই, রাশিয়াকে কোনঠাসা করার মতো মোক্ষম ইস্যু হাতে পেলো পশ্চিমারা। পোলিশ নেতারা অবশ্য একতরফা মস্কোর ওপর দায় চাপাতে নারাজ। তাদের বক্তব্য- তদন্তের পরই বোঝা যাবে এই ঘটনার মূল কারণ। তবে সামরিক জোট ন্যাটোর দেয়া যৌথ তদন্ত প্রস্তাবে আপত্তি নেই পোল্যান্ডের।তদন্তে সহযোগিতা করতে প্রস্তুত যুক্তরাষ্ট্রও। বাইডেনের দাবি, ইউক্রেনে চালানো আগ্রাসনের জন্যও জবাবদিহি করতে হবে মস্কোকে।রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা বলছেন- তদন্ত প্রতিবেদনের আগে কোনো সিদ্ধান্তে পৌঁছা ঠিক হবে না। নতুবা, অপরের জন্য খোড়া গর্তে নিজেরাই পড়বে পশ্চিমা বিশ্ব।ন্যাটোতে ইউক্রেনের অর্ন্তভুক্তি ইস্যুতে শুরু হয়েছিলো রাশিয়ার সামরিক আগ্রাসন। সদস্য রাষ্ট্র না হওয়ায় কিয়েভকে এতোদিন সহযোগিতা করতে পারেনি, সামরিক জোটটি। তবে, পোল্যান্ড সীমান্তে রাশিয়াই হামলা চালিয়েছে; সেটি প্রমাণ করতে পারলে উল্টে যাবে পাশার দান। সেসময়, পোলিশ ভূখণ্ড থেকেই রুশবহরের ওপর হামলা চালাতে বাধা থাকবে না ন্যাটোর।

সম্পর্কিত নিউজ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button