চলচ্চিত্রবিনোদন

অ্যাঞ্জেলিনা জোলির গায়ে শত শত মৌমাছি

হলিউড তারকা অ্যাঞ্জেলিনা জোলির মুখ ও সারা গায়ে বসেছিল শত শত মৌমাছি। তাতে এতটুকুও আতঙ্কিত বোধ করছিলেন না তিনি। ওই অবস্থায় প্রায় ১৮ মিনিট থাকতে হয় তাঁকে! এ সময় মৌমাছিদের সঙ্গে তোলা হয় তাঁর বেশ কিছু আলোকচিত্র।

২০ মে পালিত হলো ওয়ার্ল্ড বি ডে বা বিশ্ব মৌমাছি দিবস। প্রকৃতির জন্য মৌমাছি কতটা উপকারী, সেটা তুলে ধরতে জোলিকে নিয়ে একটি ফটোশুটের আয়োজন করেছিল ন্যাশনাল জিওগ্রাফিক চ্যানেল। মৌমাছি সংরক্ষণের বার্তা দিতে এ বিশেষ আয়োজনের ছবি তোলেন হলিউডের বিখ্যাত মডেল ফটোগ্রাফার ও ‘বি কিপার’ ড্যান উইন্টার্স।

অ্যাঞ্জেলিনা জোলি দীর্ঘদিন ধরে জাতিসংঘের শরণার্থী সংস্থার (ইউনাইটেড নেশনস হাই কমিশনার ফর রিফিউজিস, ইউএনএইচসিআর) পক্ষে কাজ করছেন। এবার বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তে মৌমাছির আড়াই হাজার বাসস্থান গড়ে তোলার যৌথ উদ্যোগ নিয়েছে ইউএনএইচসিআর, ইউনেস্কো ও ফরাসি প্রতিষ্ঠান গার্লেইন। এমনকি সেগুলো রক্ষণাবেক্ষণের ব্যবস্থাও করবে তাঁরা।

সবকিছু ঠিকঠাক থাকলে ২০২৫ সাল নাগাদ মৌমাছিদের ঘরে জন্ম নেবে ১২ কোটি ৫০ লাখ মৌমাছি, যারা প্রকৃতিতে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে। এ উদ্যোগের সঙ্গে কাজ করবেন একঝাঁক নারী। এ কারণে উদ্যোগটির নাম দেওয়া হয়েছে উইমেন ফর বিস।

১৯৮১ সালে মার্কিন আলোকচিত্রী রিচার্ড এভেডনের তোলা বিখ্যাত আলোকচিত্র ‘দ্য বি কিপার’–এর আদলে মৌমাছির সঙ্গে সম্প্রতি তোলা হলো অ্যাঞ্জেলিনা জোলির ছবি। মূলত ‘উইমেন ফর বি’ উদ্যোগটিকে তুলে ধরতেই এ আয়োজন, যেখানে ‘বি কিপার’ রূপে দেখা দিলেন জোলি। এক টুইটে এসব তথ্য জানিয়েছে গার্লেইন।

আলোকচিত্রী ড্যান উইন্টার্স ইনস্টাগ্রাম পোস্টে মৌমাছি গায়ে জোলির ছবি ও ভিডিও শেয়ার করে ক্যাপশনে লিখেছেন, ‘এই ফটোশুটের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ চ্যালেঞ্জ ছিল সবাইকে নিরাপদ রাখা। মৌমাছিগুলো যাতে রেগে না যায়, সে জন্য ঘরের বাতিগুলো নেভানো ছিল। খুব অল্প আলোয় ছবিগুলো তোলা হয়। মৌমাছিরা যাতে গিয়ে বসে, সে জন্য জোলির শরীরে লাগিয়ে দেওয়া হয় ফেরোমন। আমরা তুলনামূলক শান্ত ইতালীয় মৌমাছি ব্যবহার করেছি। জোলিকে বলা ছিল, ছবি তোলার সময় যেন একটুও নড়াচড়া না করেন।’

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button