এশিয়াবিশ্বযুক্তরাষ্ট্র

ইউক্রেনে আগ্রাসন আশঙ্কার মধ্যে কথা বলবেন বাইডেন-পুতিন

নন্দন নিউজ ডেস্ক: মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন ও রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন ভিডিও কলে কথা বলবেন। আগামী মঙ্গলবার দুই নেতার মধ্যে এই ভিডিও কল হবে। হোয়াইট হাউস এসব কথা জানিয়েছে।

বিবিসি অনলাইনের প্রতিবেদনে জানানো হয়, ইউক্রেন নিয়ে উত্তেজনা বৃদ্ধির প্রেক্ষাপটে বাইডেন ও পুতিনের মধ্যে আলোচনা হতে যাচ্ছে।

ইউক্রেনে আগ্রাসন চালাতে সীমান্ত এলাকায় রাশিয়া বিপুলসংখ্যক সেনা সমাবেশ ঘটাচ্ছে বলে অভিযোগ কিয়েভের।

একই অভিযোগ যুক্তরাষ্ট্রের। ইউক্রেনে রাশিয়ার সম্ভাব্য আগ্রাসন ঠেকানোর অঙ্গীকার করেছেন বাইডেন। তিনি বলেছেন, এ ধরনের পরিকল্পনা বাস্তবায়ন রাশিয়ার জন্য খুব কঠিন করে তুলবেন তিনি।

মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যান্থনি ব্লিঙ্কেন বলেছেন, যুক্তরাষ্ট্রের কাছে তথ্য-প্রমাণ রয়েছে যে ইউক্রেনে বড় ধরনের হামলা চালাতে রাশিয়া পরিকল্পনা নিয়েছে। তবে আক্রমণের চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত পুতিন নিয়েছেন কি না, তা এখনো স্পষ্ট নয়।

তবে এমন কোনো অভিপ্রায়ের কথা অস্বীকার করেছে রাশিয়া। মস্কোর পাল্টা অভিযোগ, ইউক্রেন তার নিজস্ব সেনাবাহিনী তৈরি করেছে।

গতকাল শনিবার সন্ধ্যায় এক বিবৃতিতে হোয়াইট হাউসের প্রেস সেক্রেটারি জেন সাকি বলেন, পুতিনের সঙ্গে আলাপে ইউক্রেন সীমান্তে রাশিয়ার সামরিক তৎপরতার বিষয়ে যুক্তরাষ্ট্রের উদ্বেগের কথা তুলে ধরবেন বাইডেন। এ ছাড়া ইউক্রেনের সার্বভৌমত্ব ও আঞ্চলিক অখণ্ডতার প্রতি যুক্তরাষ্ট্রের যে সমর্থন রয়েছে, সে কথাও তিনি পুনরায় ব্যক্ত করবেন।

ইউক্রেনের অভিযোগ, সীমান্তে সাঁজোয়া যান, ইলেকট্রনিক যুদ্ধব্যবস্থা ও ৯৪ হাজার সেনা মোতায়েন করেছে রাশিয়া।

গোয়েন্দা প্রতিবেদনের উদ্ধৃতি দিয়ে ইউক্রেনের প্রতিরক্ষামন্ত্রী ওলেকসি রেজনিকভ বলেছেন, মস্কো জানুয়ারির শেষে সামরিক হামলার পরিকল্পনা করে থাকতে পারে।

২০১৪ সালে সামরিক অভিযান চালিয়ে ক্রিমিয়া দখল করে রাশিয়া। দেশটি ইউক্রেনের বিচ্ছিন্নতাবাদীদের মদদ দিচ্ছে বলে অভিযোগ আছে। বিচ্ছিন্নতাবাদীদের সঙ্গে ইউক্রেনের সেনাবাহিনীর সংঘর্ষে এখন পর্যন্ত ১৩ হাজারের বেশি মানুষের প্রাণ গেছে।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button