এশিয়াবিশ্ব

রাশিয়ার ট্যাংক-সাঁজোয়া যানে কেন ‘জেড’ প্রতীক

নন্দন নিউজ ডেস্ক: রাশিয়ার জিমন্যাস্ট ইভান কুলিয়াকের বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা নিচ্ছে ইন্টারন্যাশনাল জিমন্যাস্টিকস ফেডারেশন। কারণ, পোডিয়ামে দাঁড়িয়ে তিনি ‘জেড’ দেখিয়েছেন। তিনি যখন এ প্রতীক দেখান, তখন তাঁর পাশে ছিলেন ইউক্রেনীয় এক জিমন্যাস্ট। ইউক্রেনে রাশিয়ার হামলা শুরুর পর থেকে প্রতীকটি গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠেছে।

ইউক্রেনে রাশিয়ার সামরিক হামলার সমর্থনের প্রতীক হয়ে উঠেছে এই ‘জেড’। অর্থাৎ যাঁরা এই যুদ্ধে সমর্থন দিচ্ছেন বা প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের এ হামলাকে সমর্থন দিচ্ছেন, তাঁরা ‘জেড’-কে প্রতীক হিসেবে ব্যবহার করছেন। এ যুদ্ধের প্রতি সমর্থনের অংশ হিসেবে রাজনীতিকেরা এ প্রতীক ব্যবহার শুরু করেছিলেন। এটি গাড়িতে, কাভার্ড ভ্যানে, বিলবোর্ডে, যাত্রীছাউনিতেও আঁকা হচ্ছে। এমনকি যুক্তরাষ্ট্রের বেলগ্রেডে রাশিয়ার পক্ষে সার্বরা যে বিক্ষোভ করছেন, তাতেও ‘জেড’ প্রতীক ব্যবহৃত হচ্ছে। গাড়িতে জেড আঁকা কিংবা সার্বদের এ বিক্ষোভের ছবি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়েছে।

এ প্রসঙ্গে ইউসিএল স্কুল অব স্লোভানিক অ্যান্ড ইস্টার্ন ইউরোপিয়ান স্টাডিসের শিক্ষক অ্যাগলায়া স্নেটকোভা বলেন, এটি এখন সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে আলোচনার বিষয়বস্তুতে পরিণত হয়েছে। রাশিয়ার যে বিস্তার, তারই চিত্র এর মধ্য দিয়ে উঠে আসছে বলে মন্তব্য করেছেন তিনি।

যদিও রুশ ভাষায় ‘জেড’ অক্ষরটি ভিন্নভাবে লেখা হয়। ইংরেজিতে ‘তিন’ যেভাবে লেখা হয়, তেমনভাবে রুশ ভাষায় লেখা হয় জেড। রয়াল ইউনাইটেড সার্ভিস ইনস্টিটিউটের গবেষক এমিলি ফেরিস বলেন, ‘জেড’ খুবই শক্তিশালী ও সহজবোধ্য একটি প্রতীক। কোনো প্রোপাগান্ডা ইস্যুতেও একটি সাধারণ বিষয় খুব দ্রুত আকর্ষণ করার ক্ষমতা রাখে।

এর প্রমাণ ইতিমধ্যে পাওয়া গেছে। এ যুদ্ধ শুরুর দুই সপ্তাহের মধ্যে যাঁরা পুতিনকে সমর্থন দিচ্ছেন, তাঁদের কাছে পৌঁছে গেছে ‘জেড’। যেমন রাশিয়ার কাজান শহরে একটি হাসপাতালের কর্মী ও ৬০টি শিশু দাঁড়িয়ে একটি ছবি তুলেছে, যা দেখতে জেডের মতো।

জেড অর্থ কী, এ নিয়ে বিভিন্ন তত্ত্ব চালু রয়েছে। রুশ বাহিনীর ট্যাংকে জেড লেখা রয়েছে, এমন ছবি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়লে বিষয়টি নজরে আসে। ওই ট্যাংকগুলো ইউক্রেনে যাচ্ছিল।

প্রথমে ধারণা করা হচ্ছিল, এটি আসলে ইংরেজির দুই। ‘২২/০২/২০২২’ তারিখটিকে নজরে আনতে এটি ব্যবহার করা হয়েছে। মূলত ওই দিন ইউক্রেনের দনবাসের দুটি এলাকা লুহানস্ক ও দোনেৎস্ককে স্বাধীন দেশ হিসেবে স্বীকৃতি দিয়েছিল রাশিয়া। তবে এখন ধারণা করা হচ্ছে, কারা রুশ বাহিনীর সদস্য, এটা চিহ্নিত করার জন্য এ প্রতীক ব্যবহার করা হচ্ছে। এ নিয়ে রাশিয়ার সরকার নিয়ন্ত্রিত টেলিভিশন চ্যানেল ওয়ানে দর্শকেরা বলেন, রুশ বাহিনীর সরঞ্জাম চিহ্নিত করার জন্য এ প্রতীক ব্যবহার করা হয়। এ ছাড়া আরেকটি রুশ সংবাদমাধ্যমেও বলা হয়, নিজেদের মধ্যে সংঘর্ষ এড়াতে এ প্রতীক ব্যবহার করা হচ্ছে।

তবে রাশিয়ার স্পেশাল ফোর্সের সাবেক কর্মকর্তা সের্গেই কুভিকিন দেশটি সাময়িকী লাইফকে বলেন, রাশিয়ার বাহিনীর ভিন্ন ভিন্ন ইউনিটকে চিহ্নিত করতে ভিন্ন ভিন্ন প্রতীক ব্যবহার করা হচ্ছে। কোনো ইউনিটকে একটি বর্গক্ষেত্রের মধ্যে জেড লিখে, কোনো ইউনিটকে বৃত্তের মধ্যে জেড লিখে, কোনো ইউনিটকে জেডের সঙ্গে তারা জুড়ে দিয়েছে, আবার কোনো ইউনিটকে শুধু জেড দিয়ে চিহ্নিত করা হয়। নিজেদের স্বতন্ত্র করতে এসব প্রতীক ব্যবহার করা হয়। কোনো ইউনিটের সেনাকে যাতে অন্য ইউনিটের কামান্ডারের কাছ থেকে সাহায্য চাইতে না হয়, সে জন্য এসব প্রতীক ব্যবহার করা হচ্ছে বলেও জানিয়েছেন তিনি।

সম্পর্কিত নিউজ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button