আফ্রিকাইউরোপএশিয়াবিশ্ব

রাশিয়ার প্রতি পূর্ণ সমর্থন রয়েছে: ভেনেজুয়েলা

নন্দন নিউজ ডেস্ক: রাশিয়া-ইউক্রেন ইস্যু নিয়ে মস্কো এবং কিয়েভের শীর্ষ নেতাদের মধ্যে আলোচনা চলছে তুরস্কে। এই আলোচনার মধ্যেই তুরস্কে ভেনেজুয়েলার ভাইস প্রেসিডেন্ট ও রুশ পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল বৃহস্পতিবার ওই বৈঠকে রাশিয়ার প্রতি নিজেদের পূর্ণ সমর্থন পুনর্ব্যক্ত করেছে ভেনেজুয়েলা। খবর এএফপির
তুরস্কে রাশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী সের্গেই লাভরভের সঙ্গে বৈঠকের পর ভেনেজুয়েলার ভাইস প্রেসিডেন্ট ডেলসি রদ্রিগেজ এক টুইট বার্তায় বলেন, ‘আমাদের ভালো বন্ধু সের্গেই লাভরভের সঙ্গে বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়েছে। আমরা নিজেদের কৌশলগত দ্বিপক্ষীয় সম্পর্ক এবং জটিল আন্তর্জাতিক পরিস্থিতি নিয়ে পর্যালোচনা করেছি।

সেখানে ভেনেজুয়েলা শান্তির স্বার্থে ভারসাম্য বজায় রাখার উপায় হিসেবে রাষ্ট্রগুলোর সার্বভৌম সমতার নীতিকে পুনরায় নিশ্চিত করেছে।’

বৈঠকে ভেনেজুয়েলার পররাষ্ট্রমন্ত্রী ফেলিক্স প্লাসেনসিয়া ছাড়াও তুরস্কের উচ্চপর্যায়ের কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

গত সপ্তাহে মার্কিন শীর্ষ কর্মকর্তাদের কয়েকজন আকস্মিক ভেনেজুয়েলা সফরে যান। সেখানে ভেনেজুয়েলা থেকে তেল কেনার আগ্রহ প্রকাশ করেন বাইডেন প্রশাসনের কর্মকর্তারা। এর কয়েক দিনের মধ্যেই ভেনেজুয়েলার ভাইস প্রেসিডেন্টের পক্ষ থেকে এমন বক্তব্য এল।

রাশিয়ার আগ্রাসনের বিরুদ্ধে ইউক্রেনকে সুদৃঢ় সমর্থন দিয়ে যাচ্ছে ওয়াশিংটন। তারা রাশিয়ার বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞার জন্য বিশ্বব্যাপী চাপের নেতৃত্ব দিচ্ছে। এসব ঘটনার মধ্যেই রাশিয়ার ঘনিষ্ঠ মিত্র হিসেবে পরিচিত ভেনেজুয়েলা মস্কোর সমর্থনে একাধিক বিবৃতি দিয়েছে।

ভেনেজুয়েলার সঙ্গে মার্কিনদের শীতল সম্পর্ক বিদ্যমান। হোয়াইট হাউস ভেনেজুয়েলার প্রেসিডেন্ট নিকোলাস মাদুরোর ২০১৮ সালের পুনর্নির্বাচনকে স্বীকৃতি দেয়নি। তেল আমদানিতে নিষেধাজ্ঞাসহ ভেনেজুয়েলার সমাজতান্ত্রিক শাসককে ক্ষমতাচ্যুত করতে বেশ কয়েকটি নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে রেখেছে যুক্তরাষ্ট্র।

সম্প্রতি রাশিয়া-ইউক্রেন সংকট শুরুর পর রাশিয়ার ওপর নানা রকম নিষেধাজ্ঞা আরোপ করতে থাকে যুক্তরাষ্ট্রসহ পশ্চিমা বিশ্বের দেশগুলো। এর মধ্যে দেশটি থেকে তেল-গ্যাস আমদানিতে নিষেধাজ্ঞার বিষয়টিও আলোচনায় রয়েছে। এরপর জ্বালানির বিকল্প বাজার খুঁজতে কয়েকটি দেশের দ্বারস্থ হয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। যার মধ্যে ভেনেজুয়েলাও রয়েছে। এসব ঘটনাপ্রবাহের মধ্যে ভেনেজুয়েলায় আটক দুই মার্কিন নাগরিককে মুক্তি দিয়েছে নিকোলাস মাদুরোর সরকার। এরপর মার্কিন প্রশাসনের কর্মকর্তাদের কারাকাসে আকস্মিক সফরের মধ্য দিয়ে দুই দেশের সম্পর্কে নতুন মোড় নিতে পারে বলেই মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা।

ভেনেজুয়েলার রাজধানী কারাকাসে যুক্তরাষ্ট্র-ভেনেজুয়েলার ওই আলোচনার তালিকায় ‘জ্বালানি নিরাপত্তা’র বিষয়টি ছিল বলে সংশ্লিষ্ট সূত্রে নিশ্চিত হওয়া গেছে। এর পর থেকে যুক্তরাষ্ট্র আবারও ভেনেজুয়েলা থেকে তেল আমদানি করতে পারে বলে ইঙ্গিত পাওয়া গেছে।

সম্পর্কিত নিউজ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button